Header Ads Widget

কন্যাশ্রী টাকা নিয়ে ফিরছে বাংলাদেশ

 কন্যাশ্রী টাকা নিয়ে ফিরছে বাংলাদেশ.


      নিজস্ব সংবাদদাতা, তমলুক: কন্যাশ্রী প্রকল্পের জন্য এককালীন অনুদানের সাথে শুক্রবার পূর্ব মেদিনীপুরের নিমতৌড়ি রেঞ্জ থেকে শাপলা সিকদার বাংলাদেশের উদ্দেশ্যে রওনা হবেন। কেবল শাপলা নয়, আরও দু'জন বাংলাদেশী মেয়েকে আজ পেট্রাপোল সীমান্ত দিয়ে প্রত্যাবাসন করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ২ টার দিকে এক জোড়া পুলিশ কনভয় তাদের সাথে পেট্রাপোলের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। পুলিশ ছাড়াও জেলা কল্যাণ বিভাগের প্রতিনিধিরা এবং সেইসাথে বাড়িটিও তমলুক থেকে পেট্রাপোল পর্যন্ত তাদের সাথে থাকবে। কেউ কেউ জেলার মধ্যে তমলুক ও নন্দকুমার দুটি বাড়িতে চার বছর এবং কয়েক বছর 6 বছরের জন্য বসবাস করছেন। সংবর্ধনা চলাকালীন, তাদের তিনজন হস্তশিল্প শিখিয়ে 11,000 রুপি অর্জন করেছিলেন। সেই নগদ সীমান্তে বাংলাদেশী মুদ্রায় বিনিময় হতে চলেছে এবং ৩ জনকে হস্তান্তর করা হবে।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ২০ বছর বয়সী শাপলা সিকদার ২০১৪ সাল থেকে তমলুকের নিমতৌড়ি রেঞ্জে অবস্থান করছেন। ১৫ বছর বয়সী নীলা খাতুন নামে আরেক বাংলাদেশী ২০১ 2016 সাল থেকে বাড়ির মধ্যে রয়েছেন। ১৮ বছরের চুমকি খাতুন রয়েছেন ২০১ 2016 সাল থেকে নন্দকুমারের বড়গোদাগোদা গ্রামের সিস্টার নিবেদিতা পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে সংবর্ধনাও রয়েছে। পুলিশ বিভিন্ন সময় তাদের উদ্ধার করেছে। তাদের পরে প্রশাসনের উদ্যোগে এবং তাই শিশু কল্যাণ কমিটির উদ্যোগে দুটি বাড়ির মধ্যে রাখা হয়েছিল।

সম্প্রতি, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের বিদেশি আঞ্চলিক রেজিস্ট্রেশন অফিস রাজ্য থেকে ৩০ জন বাংলাদেশী মেয়ে এবং যুবতী মেয়েকে দেশে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিয়েছে। বাংলাদেশের হাইকমিশনের সাথে যোগাযোগ করে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। রাজ্যের মধ্যে ৩০ জনের মধ্যে দু'জন কিশোর ও এক মেয়ে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা থেকে বাংলাদেশে ফিরে আসছেন। সংবর্ধনা চলাকালীন, তারা আবাসিক বিশেষ স্কুলে পড়াশোনা করেছিল। নিমতাউড়ির বাড়িতে একটি বিশেষ বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করার পরে শাপলা কন্যাশ্রী ১৮ বছর বয়সে এককালীন ভাতা পেয়েছেন। কন্যাশ্রীর অর্থ নিয়ে শাপলা তার দেশে ফিরে আসবেন। চুমকি হস্তশিল্প শিখিয়ে আট হাজার টাকা আয় করেছেন। নীলা এভাবে এক হাজার টাকা সাশ্রয় করেছে। শাপলা কন্যাশ্রীর এককালীন ভাতা ছাড়াও তিনি ম্যানুয়াল কাজ করে ২,০০০ রুপি সাশ্রয় করেছেন।

 

Post a Comment

0 Comments